কিছুদিন পর মুরগির গোস্ত কিস্তিতে আর গরুর গোস্ত ওষুধের সিসিতে বিক্রি হবে: আলাল

Daily Inqilab স্টাফ রিপোর্টার

১৬ মার্চ ২০২৩, ০১:৫০ পিএম | আপডেট: ২৫ মার্চ ২০২৩, ১০:৩৩ পিএম

নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতিতে কোন কিছু কিনে খাওয়ার অবস্থা নেই জানিয়ে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব এড. সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, বাজারে যাবেন বাজারে কোন কিছু কিনে খাওয়ার উপায় নেই। হয়তো বাজারে দেখা যাবে বাজারের সামনে সাইনবোর্ড ঝুলানো আছে ব্রয়লার মুরগি কিস্তিতে কেনার ব্যবস্থা করা হয়। আর আগামী কিছুদিন পরে হোমিওপ্যাথির ওষুধের সিসিতে করে গরুর মাংস বিক্রি করা হবে, জিনিসপত্রের দাম এতটা বেড়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৬ মার্চ) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মৎস্যজীবী দলের উদ্যোগে এক মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন।

সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, বাংলাদেশের অবস্থা আজ যেখানে এসে এনে দাঁড় করিয়েছে এই সরকার তাতে একটি স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে এই দেশ টিকে থাকবে কিনা এই নিয়ে মানুষের মনে এক উদ্বেগ সৃষ্টি হয়েছে। যেখানে যাবেন সেখানেই দেখবেন রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ হচ্ছে আওয়ামী লীগ। মাঠে নেমে দেখি আওয়ামী লীগ নাই সেখানে আছে হামলা লীগ, পুলিশের এক অংশের লীগ, র‍্যাবের এক অংশের লীগ এবং পেটোয়াবাহিনীর লোকজন।

বিএনপির এই যুগ্ম মহাসচিব বলেন, পরীক্ষা দিচ্ছে প্রাইমারি স্কুলের স্টুডেন্টরা তাদের ফলাফল নিয়ে পর্যন্ত গোটা জাতিকে বিভ্রান্ত করা হচ্ছে। সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় যারা উত্তীর্ণ হয়েছেন তাদেরকে তাদের স্কুলে বা কলেজে জানুয়ারি মাস থেকে বেতন ধার্য করে নেয়া হবে। কিন্তু ঢাকাসহ দেশের বহু জায়গায় এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে যারা উচ্চ মাধ্যমিকে পড়াশোনা করছেন তাদের থেকে গতবছরের টাকাসহ বর্তমান বছরের টাকা আদায় করা হচ্ছে। দেখার যেনো কেউ নেই।

যুবদ‌লের সা‌বেক এই সভাপ‌তি ব‌লেন, এই ঢাকা শহরে নাকি শতকরা ৮৪ ভাগ ভবন দাঁড়িয়ে আছে ঝুকির মধ্যে। যেকোনো সময় একটা ছোট ভূমিকম্প হলেও ঢাকা শহর একটা ধ্বংসস্তূপে পরিণত হবে। কোনো দিকে সরকারের কোন নজর নাই। মনে হচ্ছে এই দেশের কোন অভিভাবক নাই, ঢাকা শহরেরও কোন অভিভাবক নাই। মানুষ আল্লাহর ওয়াস্তে বেঁচে আছে। আল্লাহর ওয়াস্তে বেঁচে থাকার অনেক মানুষ আছে। কণ্ঠস্বর হিসেবে যারা থাকেন তাদের মুক্তির দাবিতে আমাদের আজকের এই প্রতিবাদী মানববন্ধন।

তি‌নি ব‌লেন, আমি শুধু একটা কথা বলতে চাই পায়ের আওয়াজ কিন্তু পাওয়া যাচ্ছে। সমুদ্রের কাছে গেলে যেভাবে গর্জনের শব্দ ধীরে ধীরে স্পষ্ট হয়, আরো বেশি করে এসে আঘাত করে। সেই শব্দ কিন্তু পাওয়া যাচ্ছে, শাসক দল শুনতে পাচ্ছেন না। কিন্তু এই পায়ের আওয়াজ যত কাছে আসবে, পায়ের আওয়াজ যত দীপ্ত হবে কঠিন হবে ততো জোরে কিন্তু ধাক্কা দেয়া হবে। সেই ধাক্কায় এই সরকার পড়ে যাবে। এই ব্যাপারে কোন সন্দেহ নাই। সেজন্য প্রতিজ্ঞা এবং শপথ নিয়েই আমাদের সামনে এগিয়ে যেতে হবে।

মানববন্ধনে আরো বক্তব্য রাখেন বিএন‌পির ভাইস চেয়ারম‌্যান শামসুজ্জামান দুদু, সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ, মৎস্যজীবী দলের আহ্বায়ক মাহাতাব, বিএনপি'র কেন্দ্রীয় নেতা মীর নেওয়াজ, মৎস্যজীবী দলের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহিম, দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও আন্দোলনের সভাপতি কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন প্রমুখ।

 


বিভাগ : বাংলাদেশ


আরও পড়ুন