যে কারণে নেপালে হিন্দুত্ববাদী রাজনীতির প্রভাব বাড়ছে

Daily Inqilab ইনকিলাব ডেস্ক

১৭ মার্চ ২০২৩, ০৫:৩১ পিএম | আপডেট: ৩০ এপ্রিল ২০২৩, ০১:৫৪ পিএম

নেপালের জনকপুরে যে বিখ্যাত জানকী মন্দির আছে, তার ঠিক পেছনেই রয়েছে একটা প্রাচীন মসজিদ। বলা হয়ে থাকে জানকী দেবীর মন্দিরটা বানিয়েছিলেন মুসলমান কারিগররা। তাদের নামাজ পড়ার জন্যই ওই মসজিদ তৈরি হয়েছিল।

তবে জনকপুরে এখন তিন থেকে চার শতাংশ মুসলমান বসবাস করেন। হিন্দুদের পৌরাণিক আদর্শ পুরুষ, যাকে অনেক হিন্দু ভগবান হিসাবে পুজো করেন, সেই রামের স্ত্রী সীতার জন্ম এবং বিবাহ এই জনকপুরেই হয়েছিল বলে বিশ্বাস করা হয়। জানকী মন্দিরটা শহরের ছয় নম্বর ওয়ার্ডে। ১৯৯০ এর দশকে ওই ওয়ার্ড থেকে সৈয়দ মোমিন সভাপতি নির্বাচিত হতেন। পরে ওয়ার্ড সভাপতি হয়েছিলেন মুহম্মদ ইদ্রিস। জানকী মন্দিরে যে ‘বিবাহ-পঞ্চমী’র অনুষ্ঠান হয়, সেই সময়ে সৈয়দ মোমিন আর পরে মুহম্মদ ইদ্রিস জানকী দেবী মন্দির আর রাম মন্দিরের মাঝামাঝি জায়গায় ওই পুজোয় যে বরযাত্রীরা আসতেন অংশগ্রহণকারী হিসাবে, তাদের স্বাগত জানাতেন প্রতি বছর।

সেই অনুষ্ঠানের কথা স্পষ্টই মনে আছে জনকপুরের সিনিয়র সাংবাদিক রোশন জনকপুরীর। তিনি সেই সময়ে একেবারেই শিশু ছিলেন। তিনি বলছিলেন, মুহররমের তাজিয়াও তৈরি করা হত জানকী মন্দিরের মাঠেই। মুসলমানদের জন্য জানকী মন্দিরের দরজা কখনও বন্ধ হত না আর মুসলমানদেরও কখনও মনে হত না যে ওই মন্দিরটা অন্য কোনও ধর্মাবলম্বীদের। একটা সময়ে তো জানকী মন্দিরের রন্ধনশালাতে মুসলমানরা কাজও করতেন আর রান্নার জন্য সবজি চাষও করতেন মুসলমানরাই।

কিন্তু এখন মন্দির আর মসজিদের মধ্যে দূরত্ব তৈরি হয়েছে। মাঝামাঝি একটা দেয়াল তুলে দেয়া হয়েছে। সৈয়দ মোমিন আর মুহম্মদ ইদ্রিসদের সময়টা শেষ হয়ে গেছে।‘বিবাহ-পঞ্চমী’র পুজো এখনও হয়, কিন্তু সেই পুজোয় এখন ‘বরযাত্রী’ আসেন অযোধ্যা থেকে। উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ ২০১৮ সালে ‘বরযাত্রী’ নিয়ে জনকপুরে গিয়েছিলেন। রোশন জনকপুরীর কথায়, “যোগী আসার পরে জানকী বিবাহে সৈয়দ মোমিন বা মুহম্মদ ইদ্রিসদের জন্য খুব একটা জায়গা আর নেই। নরেন্দ্র মোদী ২০১৪ সালে ভারতের প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পরে নেপালে তার গভীর প্রভাব পড়েছিল। শুধু যদি জনকপুরের কথাই ধরি, তাহলে ২০১৮ সালে মোদীর এই শহরে সফরে আসার আগে আর পরের সময়টার মধ্যে অনেক পার্থক্য হয়ে গেছে।“

ডেনমার্কে নেপালের প্রাক্তন রাষ্ট্রদূত ও কাঠমান্ডুর সেন্টার ফর সোশ্যাল ইনক্লুশান এন্ড ফেডারেলিজম নামের একটি থিংক ট্যাঙ্কের প্রধান বিজয়কান্ত কর্ণ বলছিলেন নরেন্দ্র মোদীকে দেখতে জনকপুরে অসংখ্য মানুষ জড়ো হয়েছিলেন। ‘বিদেশে মোদীকে দেখতে বা তার কথা শুনতে এত বেশী মানুষ আর কোথাও জড়ো হন নি। রঙভূমি ময়দান পুরো ভর্তি হয়ে গিয়েছিল। ওই ভিড় দেখে বোঝার উপায় ছিল না যে তিনি বিদেশের মাটিতে দাঁড়িয়ে বক্তৃতা করছেন,’ বলছিলেন কর্ণ।

তার কথায়, “নরেন্দ্র মোদী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পরে নেপালে হিন্দুত্বের রাজনীতি শক্তিশালী হয়েছে। কিন্তু প্রশাসনে যদি ধর্ম ঢুকে পড়ে, তাহলে পরিস্থিতি খারাপ হয়ে যাবে। নেপালের ১৮ লাখ মুসলমানের মধ্যে ৯৮ শতাংশই মদেশি এলাকায় থাকেন। ওই অঞ্চলটাই ভারতের লাগোয়া। তাই এরকম শুরু হলে শুধু নেপালের নিরাপত্তা নয়, ভারতের নিরাপত্তার ওপরেও বড়সড় প্রভাব পড়বে।“

“ভারত নিশ্চই এরকম নির্বোধের মত কিছু করবে না যাতে নেপাল সীমান্তটা কাশ্মীরের এলওসি (নিয়ন্ত্রণ-রেখা) বা বাংলাদেশ সীমান্তের মতো হয়ে যায়। ওই দুই সীমান্তের জন্য ভারতের কোটি কোটি টাকা ব্যয় হয়, কিন্তু নেপাল সীমান্তে তো তাদের সেটা করতে হয় না,” বলছিলেন কর্ণ।

বিশ্লেষকরা বলছেন নেপালে একদিকে যখন হিন্দুত্ববাদীদের প্রভাব বাড়ছে, তখন মুসলমানরাও কট্টর হচ্ছেন ধীরে ধীরে। সাংবাদিক চন্দ্রকিশোর ঝা বলছেন, “হিন্দুদের মধ্যে যখন কট্টরপন্থী মনোভাব বাড়ছে একইভাবে নেপালের মুসলমানদের মধ্যেও একই রিঅ্যাকশান দেখা যাচ্ছে। হিন্দুত্বের স্বপক্ষে ভারতে যে প্রচারযন্ত্র কাজ করছে, নেপালও তার বাইরে থাকছে না। যুবসমাজ একটু বেশিই জড়িয়ে পড়ছে এগুলোর মধ্যে। আরএসএস নেপালেও হিন্দু মুসলিম কার্ড খেলছে। তাই মুসলমানদের মধ্যেও একটা উদ্বেগ তৈরি হচ্ছে, তারাও সুরক্ষার অভাব বোধ করতে শুরু করেছে, তারাও নিজেদের ধর্মীয় পরিচয় নিয়ে সচেতন হচ্ছে।“

তাই নেপালের মুসলমান যুব সমাজে আসাদুদ্দিন ওয়েইসি আর জাকির নায়েকের মতো ব্যক্তিরা খুবই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন সাম্প্রতিক সময়ে। সূত্র: বিবিসি।


বিভাগ : আন্তর্জাতিক


মন্তব্য করুন

HTML Comment Box is loading comments...

আরও পড়ুন

সমতায় শেষ স্কটল্যান্ড-সুইজারল্যান্ড ম্যাচ

সমতায় শেষ স্কটল্যান্ড-সুইজারল্যান্ড ম্যাচ

হাঙ্গেরির বিপক্ষেও জার্মানির সহজ জয়

হাঙ্গেরির বিপক্ষেও জার্মানির সহজ জয়

সউদি আরবে এবার অন্ততঃ ৫৫০ হজযাত্রীর মৃত্যু

সউদি আরবে এবার অন্ততঃ ৫৫০ হজযাত্রীর মৃত্যু

নতুন মৌসুমের শুরুতেই সিটির প্রতিপক্ষ চেলসি

নতুন মৌসুমের শুরুতেই সিটির প্রতিপক্ষ চেলসি

বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে দুধকুমার নদের পানি, ভাঙ্গন আতঙ্কে নদী পাড়ের মানুষ।

বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে দুধকুমার নদের পানি, ভাঙ্গন আতঙ্কে নদী পাড়ের মানুষ।

ডেনমার্কের বিপক্ষে ফোডেনের ভালো খেলার আশা ইংল্যান্ড কোচের

ডেনমার্কের বিপক্ষে ফোডেনের ভালো খেলার আশা ইংল্যান্ড কোচের

বাগেরহাটে বজ্রপাতে দুই কৃষকের মৃত্যু, আহত ১

বাগেরহাটে বজ্রপাতে দুই কৃষকের মৃত্যু, আহত ১

চীন-নেপাল সম্পর্ক ক্রমেই গভীর হচ্ছে

চীন-নেপাল সম্পর্ক ক্রমেই গভীর হচ্ছে

বঞ্চিতদের মাঝে কোরবানির গোশত বিতরণ

বঞ্চিতদের মাঝে কোরবানির গোশত বিতরণ

কুষ্টিয়ায় এশিয়ান টিভির সাংবাদিক রিজুর উপর হামলা, গুরুতর আহতাবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি

কুষ্টিয়ায় এশিয়ান টিভির সাংবাদিক রিজুর উপর হামলা, গুরুতর আহতাবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি

দু'পক্ষের সংঘর্ষে নরসিংদীতে পুলিশ কর্মকর্তাসহ ৫ জন গুলিবিদ্ধ

দু'পক্ষের সংঘর্ষে নরসিংদীতে পুলিশ কর্মকর্তাসহ ৫ জন গুলিবিদ্ধ

এলডব্লিউজি সনদ না থাকায় চামড়া শিল্পের কাংখিত অগ্রগতি ব্যাহত : বিটিএ

এলডব্লিউজি সনদ না থাকায় চামড়া শিল্পের কাংখিত অগ্রগতি ব্যাহত : বিটিএ

সিলেটসহ উত্তরাঞ্চলের বন্যার্তদের সাহায্যার্থে এগিয়ে আসুন

সিলেটসহ উত্তরাঞ্চলের বন্যার্তদের সাহায্যার্থে এগিয়ে আসুন

ঈদুল আজহায় আনন্দ-বিনোদনে প্রবাসী কর্ণফুলী ক্রীড়া পরিষদের ত্রিদেশীয় ফুটবল টুর্ণামেন্ট

ঈদুল আজহায় আনন্দ-বিনোদনে প্রবাসী কর্ণফুলী ক্রীড়া পরিষদের ত্রিদেশীয় ফুটবল টুর্ণামেন্ট

সরকার দলীয় লোকজন দেশের সরকারি-বেসরকারি ব্যাংকগুলোকে খালি করে দিয়েছে : প্রিন্সিপাল মোসাদ্দেক বিল্লাহ মাদানি

সরকার দলীয় লোকজন দেশের সরকারি-বেসরকারি ব্যাংকগুলোকে খালি করে দিয়েছে : প্রিন্সিপাল মোসাদ্দেক বিল্লাহ মাদানি

ভূ-মধ্যসাগরে নিহত ১১ জন মাদারীপুরের ৩জন

ভূ-মধ্যসাগরে নিহত ১১ জন মাদারীপুরের ৩জন

১৪ দিনে রেমিট্যান্স এলো ১৬৪ কোটি ৬৭ লাখ ডলার

১৪ দিনে রেমিট্যান্স এলো ১৬৪ কোটি ৬৭ লাখ ডলার

শরীক কোরবানিতে পশু জবাই করার সময় সবার নাম উল্লেখ করা প্রসঙ্গে।

শরীক কোরবানিতে পশু জবাই করার সময় সবার নাম উল্লেখ করা প্রসঙ্গে।

বৃক্ষরোপণ করুন

বৃক্ষরোপণ করুন

নবায়নযোগ্য শক্তির ব্যবহার বাড়ানোর বিকল্প নেই

নবায়নযোগ্য শক্তির ব্যবহার বাড়ানোর বিকল্প নেই