জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

সহানুভূতির নামে ছাত্রীদের হলে উঠিয়ে টাকা আদায়

Daily Inqilab ওবায়দুল ইসলাম, জবি সংবাদদাতা

১১ জুন ২০২৩, ১১:০৮ পিএম | আপডেট: ১২ জুন ২০২৩, ১২:০০ এএম

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রীদের একমাত্র আবাসিক হল বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল। ১৬তলা বিশিষ্ট হলে শিক্ষার্থীদের তুলনায় আসন সংখ্যা অপর্যাপ্ত । হলে নিজের সিট নেই কিন্তু হলে থাকেন এমন অনেকেই আছেন। ছাত্রী হলের হর্তাকর্তাদের দাবি যারা আর্থিক সমস্যায় থাকে, পড়াশোনার খরচ চালাতে হিমশিম খায় আমরা তাদেরকে হলে উঠিয়ে সিট ভাগাভাগি করে থাকি। বিশ্ববিদ্যালয়ে দ্বিতীয় বা তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীরা এই সুযোগ না পেলেও প্রথম বর্ষের বা দ্বিতীয় বষের অনেক শিক্ষার্থীকে হলে উঠানো হয়েছে। প্রথম বর্ষের যারা হলে উঠেছে প্রায় সবার সাথেই টাকা লেনদেনের সম্পর্ক আছে বলে জানা যায়।

এ বিষয়ে একাধিক সাধারণ শিক্ষার্থী বলেন, সাধারণত প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীরা হলের নিয়মকানুন না জানায় সিনিয়রদের প্ররোচনায় টাকা দিয়ে হলে উঠেন। সিনিয়ররা যাবতীয় সুযোগ সুবিধা দেয়ার কথা বলে নানাভাবে বুঝায়। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, যাদের মাস্টার্সের পরিক্ষা শেষ বা যাদের বিয়ে হয়ে যায়, কেউ দেশের বাইরে চলে যান, আবার কেউ চাকরির জন্য অন্যত্র চলে যান। ফলে তাদের সিটগুলো ফাঁকা থাকে। মূলত এই সিটগুলোতেই নতুন করে ছাত্রী উঠানো হয়। কিন্তু যার নামে সিট, মেয়াদ শেষ না হওয়ার পযর্ন্ত বা আবেদন করে সিট বাতিল না করা পযর্ন্ত তিনিই সিটের মালিক থেকে যায়। অবৈধভাবে সাধারণ শিক্ষার্থীদের উঠানো হয় এসব ফাঁকা সিট দেখিয়ে। রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে এসব সিট হস্তগত করে হলের কয়েকজন ছাত্রলীগ কর্মী।

হলের প্রতিটি তলায় প্রথম বর্ষের ও দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীই অনেক। সিটের অপ্রতুলতার কারণে একটি রুমে চারটি সিট থাকলেও সেখানে থাকেন আটজন শিক্ষার্থী। যারা রাজনীতি করেন না তারা কিভাবে হলে থাকছেন? এ বিষয়টি অনুসন্ধান করে দেখা যায়, এদের সাথেই মূলত লেনদেনের একটি যোগসাজশ আছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় বা চতুর্থ বর্ষের সাধারণ শিক্ষার্থীরা বারবার আবেদন করে বিভিন্ন জায়গা থেকে সুপারিশ করেও জোটেনি একটি সিট। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম ও দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীদের অনেকেই শুরু থেকেই হলে থাকছেন। হলের প্রতি তলায় একজন হাউজ টিউটর থাকলেও এসব অবৈধ আসন ভোগীদের নজরে আনা কেন সম্ভব হচ্ছে না এ বিষয়েও ধিক্কার জানান সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

এ বিষয়ে চতুর্থ বর্ষের শিক্ষা সানজিদা আক্তার বলেন, আমি দুই তিন বার আবেদন করেও বিভিন্ন জায়গায় সুপারিশ তদবির করেও একটি সিট পেলাম না। অথচ প্রথম বা দ্বিতীয় বর্ষের অনেকেই হলে থাকছেন। এদের নামে তো হলে সিটই নেই কিন্তু হলে থাকেন কেমনে এ বিষয়ে বলেন, তারা বিভিন্ন বড় ভাইদের বা আপুদের সাথে যোগাযোগ করে টাকা পয়সা দিয়ে উঠেন। তারা যেহেতু টাকা দেয় তাদের আর রাজনৈতিক কোনো চাপ থাকে না। কিন্তু হলের হাউজ টিউটর ম্যামরা কি করেন এটাই বুঝে আসে না আমার।

প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীদের একপ্রকার বোকা বানিয়ে কোনঠাসা করে হলে উঠানো হয়। এক্ষেত্রে শুধু ছাত্রী কর্মীরাই নয়, জড়িত আছে শাখা ছাত্রলীগের কর্মী, পাশ্ববর্তী কলেজ ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরাসহ অনেকেই। মূলত, এসব বড়ভাইরাই হলে উঠানোর জন্য সব কিছু বন্দোবস্ত করে। প্রায় লক্ষাধিক টাকা ভাগবাটোয়ারা হয় এদের মধ্যে। প্রথম বর্ষের ১৫ থেকে ২০ জন শিক্ষার্থী উঠানো হয়েছে। অনুমান করা যাচ্ছে এ বছর প্রায় দেড় লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে হলকেন্দ্রিক এ চক্রটি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক প্রশাসন বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী প্রিয়া রাণী দাসকে হলে উঠানোর জন্যে প্রথমে ১৫ হাজার টাকা দাবী করা হয়। কিন্তু সে ১০ হাজার টাকা দিয়ে হলে উঠেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী নাজমুন নাহার স্বর্ণা পাটোয়ারী তাকে হলের ১৬ তলায় ১৬০৪ নাম্বার রুমে বি২ সিটে তুলেন। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশেই কবি নজরুল কলেজের এক ছাত্রলীগ কর্মী পলাশের সাথে স্বর্ণার রাজনৈতিক সম্পর্ক আছে এবং সে হলে উঠিয়ে যাবতীয় দেখভাল করবেন বলে আশ্বাস দিয়ে টাকা নেয়। ছাত্রলীগ কর্মী স্বর্ণার ভাগে টাকা কম পরায় কিছু দিন যেতে না যেতেই প্রিয়া রাণীকে রাজনৈতিক বিভিন্ন মিটিং মিছিলে যাওয়ার জন্য বাধ্য করে স্বর্ণা পাটোয়ারী। বাধ্য হয়ে কিছুদিন গেলেও তারপর আর যেতে রাজি হননি। ফলে ছাত্রলীগের কর্মী স্বর্ণা পাটোয়ারী তাকে একাধিকবার ডেকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও চড় থাপ্পড় দেয়। প্রিয়া রাণী প্রথমে এগুলো সহ্য করে নিলেও তারপর আর সহ্য না করে টাকা ফেরত চান এবং হল থেকে বের হয়ে যাওয়া সিদ্ধান্ত নেন। তারপর বিভিন্ন জনের কাছে টাকা উদ্ধারের জন্য সহায়তা চাইলেও কেউ তেমন কোনো সাড়া দেননি। এর মধ্যে তাকে বিভিন্ন মানসিক চাপ দিতেই থাকে। চাপ সহ্য করতে না পেরে এবং সামনে সেমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষার কথা চিন্তা করে গত ৩১ মে হল থেকে বের হয়ে যান প্রিয়া রাণী। এ বিষয়ে ফোন রেকর্ড প্রতিবেদকের কাছে সংরক্ষিত আছে।

এ বিষয়ে ভুগক্তভোগী প্রিয়া রাণী বলেন, আমার কাছ থেকে টাকা নিয়ে হলে তুলেছে আবার আমার সাথে নানা খারাপ ব্যবহার করেছে, মারধর করেছে। আমি টাকা চাইতে গেলে হল থেকে ফেলে দেওয়ার হুমকি দেয়। প্রথম বর্ষের আরও অনেকেই হলে থাকেন কিন্তু ওদের সাথে তো এরকম কিছু হয় নি!
এছাড়াও দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী খুশি আক্তারকে হলে উঠানোর আশ্বাস দেয় চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী ও শাখা ছাত্রলীগের কর্মী নিপুন। নিপুন তার কাছে ৫ হাজার টাকা দাবী করলে সে টাকা দিতে না পারায় তার কপালেও জোটে নি হলের একটি সিট।

এভাবে সবার অগোচরে কতজন শিক্ষার্থীকে হলে উঠানো হয়েছে তা নির্দিষ্ট করে বলা যায় না। তবে দলীয় প্রভাব বজায় রাখার জন্েয নিজের পিছনে কজন সক্রিয় কর্মী গঠন করার সুবাদে এভাবেই কাছে টানছেন ছিনিয়র ছাত্রলীগকর্মীরা।

এবিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর মোস্তফা কামাল বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি মাত্র হল। তারপরও এরকম ঘটনা কাম্য নয়। ভুক্তভোগীরা প্রশাসন বরাবর অভিযোগ করলে সত্যতা যাচাই করে ব্যবস্থা নিব।
ছাত্রীহলের প্রভোস্ট ড. দীপিকা রাণী বলেন, হলের প্রতিটি তলায় হাউজ টিউটর আছেন। উনারা বিষয়গুলো দেখভাল করবেন। কিন্তু একাডেমি পড়াশুনাসহ নানা ব্যস্ততায় হয়তো সময় দিতে পারছেন না। তবে অনৈতিক কোনো ঘটনা ঘটলে আমরা কঠোরভাবে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।


বিভাগ : জাতীয়


মন্তব্য করুন

HTML Comment Box is loading comments...

আরও পড়ুন

'১৮৫৭ সালে সুবেদার রজব আলী চট্টগ্রাম প্যারেড গ্রাউন্ডে ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করেন' -পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ

'১৮৫৭ সালে সুবেদার রজব আলী চট্টগ্রাম প্যারেড গ্রাউন্ডে ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করেন' -পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ

ঢাকায় ইসরাইলি বিমানের অবতরণ জাতির সাথে বেইমানির নামান্তর : ইসলামী ঐক্য আন্দোলন

ঢাকায় ইসরাইলি বিমানের অবতরণ জাতির সাথে বেইমানির নামান্তর : ইসলামী ঐক্য আন্দোলন

সোমালিয়ার নৌদস্যুদের চেয়েও বিএনপি অনেক বেশি ভয়ঙ্কর : পররাষ্ট্র মন্ত্রী

সোমালিয়ার নৌদস্যুদের চেয়েও বিএনপি অনেক বেশি ভয়ঙ্কর : পররাষ্ট্র মন্ত্রী

তন্বীর প্রেমের টানে নারায়ণগঞ্জ থেকে মোংলায় ছুটে আসছে সুবর্ণা

তন্বীর প্রেমের টানে নারায়ণগঞ্জ থেকে মোংলায় ছুটে আসছে সুবর্ণা

দলীয় কিছু মানুষের হাতে দেশের সম্পদ কেন্দ্রীভূত হচ্ছে

দলীয় কিছু মানুষের হাতে দেশের সম্পদ কেন্দ্রীভূত হচ্ছে

ইসরায়েল থেকে ঢাকায় বিমানের নজিরবিহীন অবতরণ: সর্বত্র নিন্দা ও প্রতিবাদের ঝড়

ইসরায়েল থেকে ঢাকায় বিমানের নজিরবিহীন অবতরণ: সর্বত্র নিন্দা ও প্রতিবাদের ঝড়

নতুন মৌসুমের আগে স্ট্রাইকারের খোঁজে ইউনাইটেড বস

নতুন মৌসুমের আগে স্ট্রাইকারের খোঁজে ইউনাইটেড বস

টোল ছাড়া এক্সপ্রেসওয়েতে উঠতে পারেনি ফায়ার সার্ভিস, সমালোচনা

টোল ছাড়া এক্সপ্রেসওয়েতে উঠতে পারেনি ফায়ার সার্ভিস, সমালোচনা

উচ্চ খরতাপের দহন দেশজুড়ে হিট এলার্ট জারি : সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রাঙ্গামাটিতে ৪০ ডিগ্রি

উচ্চ খরতাপের দহন দেশজুড়ে হিট এলার্ট জারি : সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রাঙ্গামাটিতে ৪০ ডিগ্রি

অবৈধ ইসরাইলের বিমান বাংলাদেশে অবতরণ কেন জনগণ জানতে চায় - মাওলানা জালালুদ্দীন আহমদ

অবৈধ ইসরাইলের বিমান বাংলাদেশে অবতরণ কেন জনগণ জানতে চায় - মাওলানা জালালুদ্দীন আহমদ

ইসরাইলি কার্গো বিমান বাংলাদেশের অবতরণ জাতির সাথে বেইমানির নামান্তর

ইসরাইলি কার্গো বিমান বাংলাদেশের অবতরণ জাতির সাথে বেইমানির নামান্তর

প্রকাশ্যে তরুণীকে মারধর; সোশ্যাল মিডিয়ায় সমালোচনা

প্রকাশ্যে তরুণীকে মারধর; সোশ্যাল মিডিয়ায় সমালোচনা

তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ ডেকে আনতে পারেন বাইডেন : ডোনাল্ড ট্রাম্প

তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ ডেকে আনতে পারেন বাইডেন : ডোনাল্ড ট্রাম্প

নববর্ষে যেসব রাস্তা বন্ধ থাকবে, চলতে হবে যে পথে

নববর্ষে যেসব রাস্তা বন্ধ থাকবে, চলতে হবে যে পথে

কমলনগরে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত উদ্যোক্তার মৃত্যু।

কমলনগরে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত উদ্যোক্তার মৃত্যু।

ইসরায়েলের পাশে দাঁড়ালে মধ্যপ্রাচ্যে মার্কিন ঘাঁটি গুঁড়িয়ে দেওয়ার ‘হুমকি’ ইরানের

ইসরায়েলের পাশে দাঁড়ালে মধ্যপ্রাচ্যে মার্কিন ঘাঁটি গুঁড়িয়ে দেওয়ার ‘হুমকি’ ইরানের

বাংলা নববর্ষ ১৪৩১ উপলক্ষ্যে দেশবাসীকে প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা

বাংলা নববর্ষ ১৪৩১ উপলক্ষ্যে দেশবাসীকে প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা

রাঙ্গামাটির দুর্গম-পার্বত্য সীমান্ত পরিদর্শন করলেন বিজিবির মহাপরিচালক

রাঙ্গামাটির দুর্গম-পার্বত্য সীমান্ত পরিদর্শন করলেন বিজিবির মহাপরিচালক

তীব্র তাপদাহ থাকতে পারে আরও ৩ দিন

তীব্র তাপদাহ থাকতে পারে আরও ৩ দিন

পাকিস্তানে চলন্ত বাস থেকে নামিয়ে গুলি, নিহত ৯

পাকিস্তানে চলন্ত বাস থেকে নামিয়ে গুলি, নিহত ৯