রেকর্ড ২২৯২ ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি, মৃত্যু ৯

ঢাকার ১১ এলাকা ‘রেডজোন’

Daily Inqilab স্টাফ রিপোর্টার

২৩ জুলাই ২০২৩, ১১:৩৫ পিএম | আপডেট: ২৩ জুলাই ২০২৩, ১১:৩৫ পিএম

রাজধানীতে প্রতিদিন ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা লাফিয়ে-লাফিয়ে বেড়েই চলেছে। গড়ছে নতুন নতুন রেকর্ডও। এমন অবস্থায় ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ দুই সিটি করপোরেশনের ১১টি এলাকাকে ‘রেডজোন’ ঘোষণা করেছে স্থানীয় সরকার। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (হাসপাতাল ও ক্লিনিকসমুহ) ডা. মো. হাবিবুল আহসান তালুকদার রোববার এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, গত ২২ জুলাই ঢাকার হাসপাতালগুলোতে যেসব রোগী ভর্তি হয়েছেন, তাদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি এসেছেন ওই ১১টি এলাকা থেকে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে সারাদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ৯ জন মারা গেছেন। এ নিয়ে চলতি বছর মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ১৭৬ জনে। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ২২৯২ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, রাজধানীর ১৮ শতাংশ বাড়িতে এডিস মশার লার্ভার উপস্থিতি পাওয়া গেছে। সাধারণত কোনো এলাকার ৫ শতাংশ বাড়িতে লার্ভা পাওয়া গেলে ওই পরিস্থিতিকে ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ ধরা হয়। যে ১১টি এলাকাকে রেডজোন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে তার মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ৬টি এলাকা এবং উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) ৫টি এলাকা রয়েছে। ঢাকা দক্ষিণের এলাকাগুলো হলো- যাত্রাবাড়ী, মুগদা, কদমতলী, জুরাইন, মানিকনগর, সবুজবাগ এবং ঢাকা উত্তরের এলাকাগুলো- উত্তরা, মোহাম্মদপুর, মিরপুর, তেজগাঁও ও বাড্ডা।

ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে রাজধানীর দুই সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকেই নানান ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। তবে পরিকল্পিত কোনো পদক্ষেণ চোখে পড়েনি। কীট বিশেষজ্ঞরা বর্ষা মৌসুম শুরুর অনেক আগেই ডেঙ্গুর পাদুর্ভাব বেড়ে যেতে পারে আশঙ্কা প্রকাশ করে আগ থেকে কার্যকর পদক্ষেপের পরামর্শ দিয়েছিলেন। কিন্তু দুই সিটি কর্পোরেশনের মেয়ররা সে পরামর্শ গ্রহণ করেননি। তবে তারা টিভির ক্যামেরায় নিজেদের কার্যক্রম চালিয়ে গেছেন মাসের পর মাস ধরে। ফলে ঢাকায় এডিস মশাবাহিত এ রোগের প্রকোপ স্মরণকালের ভয়াবহ পরিস্থিতি পার করছে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, চলতি বছর বর্ষা প্রাক-বর্ষা মৌসুম জরিপে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের ৫৫টি ওয়ার্ডকে এইডিস মশার ঘনত্বের হিসাবে ঝুঁকিপূর্ণ বলা হয়েছিল। এর মধ্যে উত্তর সিটি করপোরেশন এলাকার ২৭টি এবং দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এলাকার ২৮টি ওয়ার্ডে ব্রুটো ইনডেক্স পাওয়া যায় ২০ এর বেশি। মশার লার্ভার উপস্থিতি হিসাব করা হয় ব্রুটো ইনডেক্সের মাধ্যমে।

ঢাকার মুগদা হাসপাতালে ২৫৪ জন, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ১৬৪ জন, মিটফোর্ড হাসপাতালে ৭০ জন, শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে ২৬ জন, ঢাকা শিশু হাসপাতালে ২৯ জন, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ৩৪ জন, সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ২৫ জন এবং ডিএনসিসি হাসপাতালে ৫৮ জন রোগী ভর্তি হয়েছে গত শনিবার সকাল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায়।

এ বছর ঢাকার মুগদা হাসপাতালে সবচেয়ে বেশি, ৪৫৭৯ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছে। এছাড়া ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ১৮৫৫ জন, মিটফোর্ড হাসপাতালে ১৬১৪ জন, শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে ৫১১ জন, ঢাকা শিশু হাসপাতালে ৩২৫ জন, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ৬০৯ জন, সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ৬৩০ জন এবং ডিএনসিসি হাসপাতালে ৫৮৯ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন।
সংবাদ সম্মেলনে ডা. হাবিবুল আহসান তালুকদার বলেন, ঢাকার বাইরে সবচেয়ে বেশি রোগী ভর্তি হচ্ছে চট্টগ্রাম এবং বরিশাল বিভাগে। তবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশিদ আলমের মতে, ডেঙ্গুর বর্তমান পরিস্থিতিতে এখনও জরুরি অবস্থা জারি করার মতো হয়নি।

রোগতত্ত¡, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর) সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. এ এস এম আলমগীর হোসেন বলেন, ডেঙ্গুর পিক টাইম এখনও শুরু হয়নি। আগস্ট- সপ্টেম্বরে নিঃসন্দেহে পরিস্থিতি আরো খারাপ হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। ডেঙ্গু রোগীর জন্য সবচেয়ে বেশি জরুরি ফ্লুয়েড ম্যানেজমেন্ট। সঠিক সময়ে এটা না হলে মৃত্যুর ঝুঁকি অনেক বেশি।

এদিকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের ইনচার্জ ডা. মো. জাহিদুল ইসলামের সই করা ডেঙ্গু বিষয়ক প্রতিবেদনে জানানো হয়, শনিবার (২২ জুলাই) সকাল ৮টা থেকে রোববার সকাল ৮টা পর্যন্ত ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে দেশের বিভিন্ন সরকারি- বসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ২২৯২ জন রোগী। তাদের মধ্যে ঢাকার বাসিন্দা ১০৬৪ জন ও ঢাকার বাইরের ১২২৮ জন।

চলতি বছরের ১ জানুয়ারি থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৩২ হাজার ৯৭৭ জন। তাদের মধ্যে রাজধানীর বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ১৯ হাজার ৯৪৯ জন। আর ঢাকার বাইরের হাসপাতালগুলোতে ভর্তি হয়েছেন ১৩ হাজার ২৮ জন। একই সময়ে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র পেয়েছেন ২৫ হাজার ৬২৬ জন। তাদের মধ্যে ঢাকার বাসিন্দা ১৫ হাজার ৬৬১ জন এবং ঢাকার বাইরের ৯ হাজার ৯৬৫ জন।
এর আগে ২০২২ সালে ডেঙ্গুে দেশের ইতিহাসের সর্বোচ্চ ২৮১ জন মারা যান। ওই বছরের শেষ মাস ডিসেম্বরে ডেঙ্গুতে ২৭ জনের মৃত্যু হয়। একই সঙ্গে আলোচ্য বছরে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন ৬২ হাজার ৩৮২ জন।

সরকারের খাতায এই চিত্র দেখানো হলেও বাস্তব চিত্র আরো অনেক বেশি। রাজধানী ঢাকার ১টি এলাকায় ঘরে ঘরে ডেঙ্গু রোগী। পাড়া মহল্লার ক্লিনিক ও হাসপাতলে এসব রোগী পরীক্ষা করাচ্ছেন এবং কেউ ক্লিনিকে কেউ বাসায় চিকিৎসা নিচ্ছেন। ফলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর যে সংখ্যা দিয়েছে বাস্তবে রোগীর সংখ্যা কয়েকগুন বেশি।

২০২০ সালে করোনা মহামারিকালে ডেঙ্গু সংক্রমণ তেমন একটা দেখা না গেলেও ২০২১ সালে সারাদেশে ডেঙ্গু আক্রান্ত হন ২৮ হাজার ৪২৯ জন। একই বছর দেশব্যাপী ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে ১০৫ জনের মৃত্যু হয়েছিল।
চট্টগ্রামে ডেঙ্গু আক্রান্ত আরো ১১১ জন।
চট্টগ্রাম ব্যুরো জানায়, চট্টগ্রামে ডেঙ্গুর ভয়ঙ্কর রূপ অব্যাহত আছে। গত ২৪ ঘণ্টায় কারও মৃত্যু না হলেও নতুন করে ১১১ জন ডেঙ্গু জ¦রে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তাদের মধ্যে সরকারি হাসপাতালে ভর্তি হন ৭১ জন এবং বেসরকারি হাসপাতালে ৪০ জন। বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ২৭১ জন। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন এক হাজার ৭৬৩ জন। এ পর্যন্ত ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছেন দুই হাজার ৩৪ জন। মারা গেছেন ২২ জন।

 


বিভাগ : জাতীয়


মন্তব্য করুন

HTML Comment Box is loading comments...

আরও পড়ুন

কুষ্টিয়ায় পরকীয়ার জেরে যুবককে পিটিয়ে হত্যা, আটক ৩

কুষ্টিয়ায় পরকীয়ার জেরে যুবককে পিটিয়ে হত্যা, আটক ৩

কুষ্টিয়ায় বালু বোঝাই ট্রলি চাপায় বৃদ্ধা নিহত

কুষ্টিয়ায় বালু বোঝাই ট্রলি চাপায় বৃদ্ধা নিহত

বঙ্গোপসাগরে শক্তিশালী হচ্ছে নিম্নচাপ, আঘাত হানতে পারে যেসব জেলায়

বঙ্গোপসাগরে শক্তিশালী হচ্ছে নিম্নচাপ, আঘাত হানতে পারে যেসব জেলায়

মার্কিন সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার ডিক্রিতে সাক্ষর করলেন পুতিন

মার্কিন সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার ডিক্রিতে সাক্ষর করলেন পুতিন

আজিজের নিষেধাজ্ঞা ও বেনজীরের সম্পদ ক্রোক জাতির জন্য লজ্জার : ডা. শাহাদাত

আজিজের নিষেধাজ্ঞা ও বেনজীরের সম্পদ ক্রোক জাতির জন্য লজ্জার : ডা. শাহাদাত

অবরুদ্ধ গাজায় কোরআন পোড়াচ্ছেন ইসরায়েলি সেনারা

অবরুদ্ধ গাজায় কোরআন পোড়াচ্ছেন ইসরায়েলি সেনারা

কৈলাশটিলা-৮ কূপ থেকে প্রতিদিন মিলবে ২১ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস

কৈলাশটিলা-৮ কূপ থেকে প্রতিদিন মিলবে ২১ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস

একাকী নামাজ পড়ার সময় ইকামত দেওয়া প্রসঙ্গে।

একাকী নামাজ পড়ার সময় ইকামত দেওয়া প্রসঙ্গে।

জলাবদ্ধতার নিরসন চাই

জলাবদ্ধতার নিরসন চাই

রাশিয়া মহাকাশে উপগ্রহ বিধ্বংসী অস্ত্র উৎক্ষেপন করেছে: যুক্তরাষ্ট্র

রাশিয়া মহাকাশে উপগ্রহ বিধ্বংসী অস্ত্র উৎক্ষেপন করেছে: যুক্তরাষ্ট্র

ফরিদপুরে বোমায় উড়ে গেল যুবকের আঙ্গুল চোখ ও কনুই

ফরিদপুরে বোমায় উড়ে গেল যুবকের আঙ্গুল চোখ ও কনুই

ইন্দুরকানীতে ৪র্থ শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে যুবক গ্রেফতার

ইন্দুরকানীতে ৪র্থ শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে যুবক গ্রেফতার

ঘুমের মধ্যেই মৃত্যু ‘বিশ্বের সবচেয়ে সুখী কুকুর’ কাবোসুর

ঘুমের মধ্যেই মৃত্যু ‘বিশ্বের সবচেয়ে সুখী কুকুর’ কাবোসুর

কালিয়াকৈরে ভয়াবহ আগুনে কলোনির শতাধিক ঘর পুড়ে ছাই

কালিয়াকৈরে ভয়াবহ আগুনে কলোনির শতাধিক ঘর পুড়ে ছাই

শেষ পর্যস্ত শাভিকে ছাঁটাই করল বার্সা

শেষ পর্যস্ত শাভিকে ছাঁটাই করল বার্সা

নেত্রকোণার পূর্বধলায় চিরকুট লেখে ট্রেনের নীচে ঝাঁপ দিয়ে নারীর আত্মহত্যা

নেত্রকোণার পূর্বধলায় চিরকুট লেখে ট্রেনের নীচে ঝাঁপ দিয়ে নারীর আত্মহত্যা

বিএনপি-জামায়াত দেশের রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থা ধ্বংসের ষড়যন্ত্র করছে : নাছিম

বিএনপি-জামায়াত দেশের রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থা ধ্বংসের ষড়যন্ত্র করছে : নাছিম

মাঠে নামতে মুখিয়ে আছে ইংল্যান্ড-পাকিস্তান

মাঠে নামতে মুখিয়ে আছে ইংল্যান্ড-পাকিস্তান

২১শ’ সাল নাগাদ বিশ্বে শিশু জন্মের হার ১.৭ শতাংশে নামবে

২১শ’ সাল নাগাদ বিশ্বে শিশু জন্মের হার ১.৭ শতাংশে নামবে

উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আগুন, ২ শতাধিক শেড পুড়ে ছাই

উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আগুন, ২ শতাধিক শেড পুড়ে ছাই