দানকরের সাড়ে ১২ কোটি টাকা পরিশোধ করলেন ড. ইউনূস

Daily Inqilab স্টাফ রিপোর্টার

২৫ জুলাই ২০২৩, ১১:২৯ পিএম | আপডেট: ২৬ জুলাই ২০২৩, ১২:০৩ এএম

উচ্চ আদালতের রায় অনুযায়ী জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) বকেয়া দানকরের ১২ কোটি ৪৬ লাখ ৭২ হাজার ৬০৮ টাকা পরিশোধ করেছেন নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্মদ ইউনূস। গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর বিজয়নগর এলাকায় কর অঞ্চল-১৪ এর ২৮৭ সার্কেলের উপ কর কমিশনারের দফতরে এ দানকর পরিশোধ করা হয়।
সাউথ ইস্ট ব্যাংক লিমিটেডের প্রিন্সিপাল শাখা থেকে এই কর পরিশোধ করা হয়। কর পরিশোধের পর ড. মুহাম্মদ ইউনূসের ক্ষমতাপ্রাপ্ত প্রতিনিধি মো. রুহুল আমিন সরকার উপ-কর কমিশনার বরাবর একটি চিঠি লিখেন। চিঠিতে তিনি বকেয়া কর পরিশোধের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।
এর আগে গত রোববার ড. ইউনূসের নামে প্রতিষ্ঠিত তিনিট ট্রাস্টে দানের বিপরীতে এনবিআরের আরোপিত দানকর বৈধ ঘোষণা করা রায়ের বিরুদ্ধে নোবেলজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূসের লিভ টু আপিল খারিজ করেন সর্বোচ্চ আদালত। সেই সঙ্গে এনবিআরের পাওনা বাবদ ১২ কোটি ৪৬ লাখ ৭২ হাজার ৬০৮ টাকা টাকা দানকর ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে দিতে হবেই বলে রায় দেন প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন ৪ সদস্যের আপিল বেঞ্চ।
মামলা থেকে জানা যায়, ১৯৯০ সালের দানকর আইন অনুযায়ী ২০১১-২০১২ করবর্ষে মোট ৬১ কোটি ৫৭ লাখ ৬৯ হাজার টাকা দানের বিপরীতে প্রায় ১২ কোটি ২৮ লাখ ৭৪ হাজার টাকা কর দাবি করে নোটিশ পাঠায় এনবিআর। এ ছাড়া ২০১২-২০১৩ করবর্ষে ৮ কোটি ১৫ লাখ টাকা দানের বিপরীতে ১ কোটি ৬০ লাখ ২১ হাজার টাকা এবং ২০১৩-২০১৪ করবর্ষে ৭ কোটি ৬৫ হাজার টাকা দানের বিপরীতে ১ কোটি ৫০ লাখ ২১ হাজার টাকা কর দাবি করে নোটিশ দেয় এনবিআর।
এনবিআরের এসব নোটিশের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে আপিল ট্রাইব্যুনালে মামলা করেন ড. ইউনূস। তিনি দাবি করেন, আইন অনুযায়ী দানের বিপরীতে এনবিআর এই কর দাবি করতে পারে না। ২০১৪ সালের ২০ নভেম্বর তার আবেদন খারিজ করে দেয়া হয়। এরপর ২০১৫ সালে হাইকোর্টে তিনটি আয়কর রেফারেন্স মামলা করেন তিনি। মামলাগুলোর প্রাথমিক শুনানি নিয়ে দানকর দাবির নোটিশের কার্যকারিতা স্থগিত করে ২০১৫ সালে রুল জারি করেন হাইকোর্ট। ওই রুলের চূড়ান্ত শুনানি শেষে নিজের নামে প্রতিষ্ঠিত তিনটি ট্রাস্টে ড. ইউনূস মৃত্যু ও পরিবারের সদস্যদের কল্যাণ চিন্তা করে যে টাকা দান করেছেন, তার বিপরীতে এনবিআরের আরোপ করা দানকর বৈধ ঘোষণা করে রায় দেন হাইকোর্ট।
৩১ মে রায়ের পর অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন সাংবাদিকদের বলেছিলেন, ড. মুহাম্মদ ইউনূস তিন প্রতিষ্ঠানে ৭৭ কোটি টাকা দান করেছিলেন। এনবিআরের নোটিশের পর হাইকোর্টে তিনটি রেফারেন্স মামলা করেছিলেন তিনি। হাইকোর্ট রেফারেন্সগুলো ঠিক বলে আবেদনগুলো খারিজ করে দিয়েছেন। এখন এনবিআরের দাবি করা দানকর দিতে হবে। এনবিআর ১৫ কোটি টাকার বেশি দাবি করেছিল। ইতোমধ্যে ৩ কোটি টাকার মতো দেয়া হয়েছে। এখন বাকি ১২ কোটি টাকা পরিশোধ করেন। ##


বিভাগ : জাতীয়


মন্তব্য করুন

HTML Comment Box is loading comments...

আরও পড়ুন

রিমালে লণ্ডভণ্ড উপকূল

রিমালে লণ্ডভণ্ড উপকূল

ক্ষোভে ফুঁসছেন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তারা

ক্ষোভে ফুঁসছেন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তারা

হজ্ব-উমরার আমলসমূহ মর্তবা ও ফযীলত-৩

হজ্ব-উমরার আমলসমূহ মর্তবা ও ফযীলত-৩

অধরাই থেকে যায় পাচার হওয়া স্বর্ণের আসল মালিক

অধরাই থেকে যায় পাচার হওয়া স্বর্ণের আসল মালিক

বেনজীরের ১১৯ সম্পত্তি জব্দ ২৩ সম্পত্তি ক্রোক

বেনজীরের ১১৯ সম্পত্তি জব্দ ২৩ সম্পত্তি ক্রোক

কোলকাতায় এমপি খুন হাজার প্রশ্ন এবং সংবিধান

কোলকাতায় এমপি খুন হাজার প্রশ্ন এবং সংবিধান

তদন্তে কলকাতায় ঢাকার ডিবি টিম

তদন্তে কলকাতায় ঢাকার ডিবি টিম

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে যেন সাংবাদিক হয়রানি না হয়, সে ব্যাপারে সরকার সতর্ক -ওবায়দুল কাদের

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে যেন সাংবাদিক হয়রানি না হয়, সে ব্যাপারে সরকার সতর্ক -ওবায়দুল কাদের

আজিজের বিচার সেনাবাহিনী করবে, বেনজিরের বিরুদ্ধে ব্যবস্থায় সরকার সম্মত -অর্থমন্ত্রী

আজিজের বিচার সেনাবাহিনী করবে, বেনজিরের বিরুদ্ধে ব্যবস্থায় সরকার সম্মত -অর্থমন্ত্রী

দেশের অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ আমাদের দোষে নয় -সালমান এফ রহমান

দেশের অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ আমাদের দোষে নয় -সালমান এফ রহমান

সরকার গুমকে অস্ত্র হিসেবে বেছে নিয়েছে -মির্জা ফখরুল

সরকার গুমকে অস্ত্র হিসেবে বেছে নিয়েছে -মির্জা ফখরুল

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলায় দুই সাংবাদিকের সাজা

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলায় দুই সাংবাদিকের সাজা

দুর্নীতির শ্বেতপত্র প্রকাশের আহ্বান

দুর্নীতির শ্বেতপত্র প্রকাশের আহ্বান

ভারতের নির্বাচনে প্রভাব সৃষ্টিকারী মুসলিমবিরোধী ৪ দাবি : সত্যিটা কী?

ভারতের নির্বাচনে প্রভাব সৃষ্টিকারী মুসলিমবিরোধী ৪ দাবি : সত্যিটা কী?

মিয়ানমার থেকে পালিয়েছে আরো ৪৫ হাজার রোহিঙ্গা : জাতিসঙ্ঘ

মিয়ানমার থেকে পালিয়েছে আরো ৪৫ হাজার রোহিঙ্গা : জাতিসঙ্ঘ

ইসরাইলি সৈন্যদের ফাঁদে ফেলে বন্দী করেছে হামাস

ইসরাইলি সৈন্যদের ফাঁদে ফেলে বন্দী করেছে হামাস

চীনের সঙ্গে সমঝোতা চাইছেন তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট

চীনের সঙ্গে সমঝোতা চাইছেন তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট

স্থবির বন্দর বাণিজ্য

স্থবির বন্দর বাণিজ্য

ছাদে উঠলো অটোরিকশা

ছাদে উঠলো অটোরিকশা

ট্রাফিকের দায়িত্বে কুকুরও

ট্রাফিকের দায়িত্বে কুকুরও