ঢাকা   বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪ | ৫ বৈশাখ ১৪৩১
“সামনে পুরো মাসেই নির্বাচনের আগে-পরে সংঘাত সহিংসতা অর্থনীতিতে বড় ধরনের বিপর্যয় ডেকে আনবে। অর্থনীতির কোনো খাত এখন ভালো নেই” -বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ড. মইনুল ইসলাম “আমেরিকার নিষেধাজ্ঞায় গার্মেন্টসহ রফতানি ব্যাহত হবে। হরতাল-অবরোধে গণতান্ত্রিক আন্দোলনের পথ পরিক্রমার হয়তো সহসা শেষ হবে না। অস্থিরতা তীব্রতর হবে” -প্রবীণ অর্থনীতিবিদ ড. আবুল কালাম আযাদ “হরতাল-অবরোধ সংঘাতের সংস্কৃতি আবারো ফিরে এসেছে। যা অর্থনীতির ওপর মরণব্যাধি” -চিটাগাং চেম্বার সভাপতি ওমর হাজ্জাজ “রাজনৈতিক অনিশ্চয়তায় বিদেশি ক্রেতারা ভীত। পোশাক রফতানি ও অর্ডার কমে গেছে” -বিজিএমইএ সহ-সভাপতি রাকিবুল আলম চৌধুরী

অস্থিরতায় ক্ষতিগ্রস্ত অর্থনীতি

Daily Inqilab শফিউল আলম

১০ ডিসেম্বর ২০২৩, ১২:১৬ এএম | আপডেট: ১০ ডিসেম্বর ২০২৩, ১২:১৬ এএম

দেশের রাজনীতিতে অস্থিরতা এখন চরমে। অস্থিরতার ধাক্কা গিয়ে পড়ছে অর্থনীতিতে। এর প্রভাব বা ধকল দিন দিন প্রকট হচ্ছে। অর্থনীতির সব দিক, খাত-উপখাত ধাবিত হচ্ছে অনিশ্চয়তার পথে। সাধারণ জনগণ ‘ভালো’ নেই। চারদিকে অস্বস্তি, হতাশা, হা-পিত্যেস। জনমনে ক্ষোভ-অসন্তোষ। সুখ-শান্তি উবে গেছে। শিল্পপতি থেকে ফুটপাতের দোকানি সবার কপালে দুশ্চিন্তার ভাঁজ। বাংলাদেশে উৎপাদিত পণ্যের বিদেশি ক্রেতারা উদ্বিগ্ন তটস্থ। আগামী ৭ জানুয়ারি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দিন ঘনিয়ে আসছে। অথচ নেই নির্বাচনী ‘উৎসব’। বরং আছে ভয়-শঙ্কা। জনগণের মাঝে হাজারো প্রশ্ন-কৌতুহল, সংশয় ঘুরপাক খাচ্ছে। অর্থনীতি নামক ‘গাড়ি চলে না- চলে না’ দশায় ঠেকে গেছে। ইতোমধ্যে আমেরিকা এবং ইউরোপের দেশসমূহে বিশেষত তৈরি পোশাক রফতানি কমে গেছে আশঙ্কাজনক হারে। শ্রমনীতি, আইন-বিধি, গাইড লাইন ঘোষণা ইত্যাদি ব্যবস্থা গ্রহণের কারণে অর্থনীতিতে সঙ্কট আরও ঘনীভূত হচ্ছে। থমকে আছে বিদেশে শ্রমবাজার।

ডলার সঙ্কটে ব্যবসা-বাণিজ্য, শিল্প প্রতিষ্ঠানের নাজুক দশা। রিজার্ভের পরিমাণ কমছেই। বেশিরভাগ ব্যাংক তারল্য সঙ্কটে ভুগছে। রুগ্ন হয়ে পড়ছে অনেক ব্যবসা-বাণিজ্য, শিল্প-কারখানা, লিংকেজ খাত, গ্রামীণ ও প্রান্তিক অর্থনীতির বিভিন্ন উপখাত। কর্মসংস্থান থমকে গেছে। বাড়ছে বেকারত্ব। মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধি পেয়েছে। চট্টগ্রাম ও মোংলা সমুদ্রবন্দরে জট নেই। তবে টানা হরতাল অবরোধের কারণে বন্দরমুখী ও বহির্মুখী আমদানি-রফতানি পণ্যের স্বাভাবিক পরিবহণ ব্যাহত হচ্ছে। দেশের অর্থনীতির সর্বত্র মন্দার কালো ছায়া। সামগ্রিকভাবে অর্থনীতির সব সূচক নেতিবাচক বা অবনতিশীল ধারায় যাচ্ছে। অর্থনীতিবিদগণ বলছেন, স্মরণকালের মধ্যে অর্থনীতিতে বহুমুখী ধস সৃষ্টি হয়েছে। চলমান রাজনৈতিক সঙ্কট ও অস্থিরতার কারণে অর্থনীতিতে সমস্যা-সঙ্কট কোথায় গিয়ে ঠেকবে তা অনিশ্চিত। পরিস্থিতি যতই অবনতির দিকে যাচ্ছে ততই উদ্বিগ্ন-চিন্তিত হচ্ছেন দেশের ব্যবসায়ী-শিল্পপতি, অর্থনীতিবিদ, নাগরিক সমাজসহ আপামর মানুষজন। সবার মুখে মুখে উচ্চারিত প্রশ্ন কৌতুহল, এভাবে চলতে থাকলে এরপর কী হবে!

অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ, গ্রহণযোগ্য ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের দাবিতে বিএনপিসহ মাঠের বিরোধীদলের আন্দোলন এবং আমেরিকাসহ বিদেশিদের পরামর্শ ও চাপ, ভিসা নীতি, নিষেধাজ্ঞার হুমকি, অন্যদিকে আওয়ামী লীগ সরকারের অনড় অবস্থানের মধ্যদিয়ে দেশে রাজনৈতিক অস্থিতিশীল অবস্থা চলে আসছে এক বছর যাবৎ। এর জেরে গত ২৮ অক্টোবর বিএনপিসহ বিরোধীপক্ষের সমাবেশকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ, সহিংসতা, পুলিশি ধরপাকড়, নেতা-কর্মীদের কারাগারে বন্দি, হামলা, মামলা, হুলিয়া, অগণিত সংখ্যককে সাজা প্রদান ইত্যাদির প্রেক্ষাপটে পরিস্থিতির আরও অবনতি ঘটে। এ অবস্থায় সিইসি’র দ্বাদশ সংসদ নির্বচনের তফসিল ঘোষণা এবং আন্দোলনরত বিরোধী দলগুলোর নির্বাচন বর্জনের ফলে বিএনপি বিহীন ৭ জানুয়ারি অনুষ্ঠেয় নির্বাচন আওয়ামী লীগের একতরফা নির্বাচন হতে চলেছে। এর পাশাপাশি বিরোধীপক্ষের হরতাল, সর্বাত্মক অবরোধ, আন্দোলন অব্যাহত থাকায় একতরফা নির্বাচনকে ঘিরে রাজনৈতিক সঙ্কট ও অস্থিরতা আরো বৃদ্ধি পেয়েছে।

একতরফা সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিরোধীপক্ষের লাগাতার আন্দোলনের মধ্য দিয়ে চলমান রাজনৈতিক অস্থিরতায় চাপের মুখে পড়েছে দেশের অর্থনীতি। অর্থনীতিবিদ, শিল্প-মালিক ও ব্যবসায়ী নেতারা বলছেন, বৈশ্বিক ও জাতীয় প্রয়োজনের তাগিদে স্থিতিশীলতার বিকল্প নেই। এর জন্য জনগণ তথা ভোটারদের অবাধ, নিরপেক্ষ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন প্রয়োজন। প্রত্যেক সেক্টরে গণতান্ত্রিক পরিবেশ, সুশাসন, জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা অপরিহার্য। অন্যদিকে একতরফা নির্বাচনে তা অনিশ্চয়তার আবর্তে পড়ে গেছে। রাজনীতিতে অস্থিরতা অশান্তি যতই বাড়ছে অর্থনীতিতে গিয়ে পড়ছে তীব্র বিরূপ প্রভাব-প্রতিক্রিয়া। শহর-নগর, শিল্পাঞ্চল থেকে শুরু করে গ্রামীণ অর্থনীতির চাকা স্থবির হয়ে পড়েছে। একতরফা নির্বাচনের পরে সঙ্কট ও অস্থিতিশীল অবস্থা আরো ঘোলাটে রূপ নেবে এমনটি শঙ্কা ব্যক্ত করেছেন অনেকেই।

চলমান রাজনৈতিক অস্থিরতায় অর্থনীতির সঙ্কট প্রসঙ্গে বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির সাবেক সভাপতি একুশে পদকপ্রাপ্ত বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ প্রফেসর ড. মইনুল ইসলাম গতকাল শনিবার দৈনিক ইনকিলাবকে বলেন, রাজনৈতিক অস্থিরতা, হরতাল, অবরোধের কারণে দেশের অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। অর্থনীতি স্থবিরতায় আটকে গেছে। এটা অব্যাহত থাকবে। ৭ তারিখের নির্বাচনের আগে-পরে সংঘাত সহিংসতা আরও বেড়ে যাবে। সামনে পুরো মাসেই ব্যাপক বিপর্যয় ডেকে আনবে অর্থনীতিতে।

মূল্যস্ফীতি আরও বৃদ্ধি পাবে। রিজার্ভ কমে যাবে আরও। রিজার্ভের পতন থামানো যায়নি। ডলার সঙ্কট ঠেকানো যাচ্ছে না। ইতোমধ্যেই যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপীয় দেশসমূহে পণ্যসামগ্রীর রফতানি উল্লেখযোগ্য হারে হ্রাস পেয়েছে। অর্থনীতির কোনো খাতই এখন ‘ভালো’ অবস্থায় নেই। অর্থনীতির সব সূচক নেতিবাচক ধারার দিকে ধাবিত হচ্ছে। খারাপ অবস্থার দিকে যাচ্ছে দেশ। নির্বাচনে গোলমাল বেড়ে গেলে অর্থনীতিতে বড় ধরনের সঙ্কট তৈরি হবে। সঙ্কট উত্তরণের জন্য সমাধানের পথ খুঁজে বের করতে হবে।

এ প্রসঙ্গে প্রবীণ অর্থনীতিবিদ চবি’র অর্থনীতি বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত প্রফেসর ড. আবুল কালাম আযাদ বলেন, অস্থির ও অনিশ্চিত পরিস্থিতির কারণে সবার মাঝে ভয়-আতঙ্ক বিরাজ করছে। দেশে একতরফা নির্বাচন হতে যাচ্ছে। গণতন্ত্রের জন্য দেশ স্বাধীন হয়ে স্বৈরতন্ত্রে ডুবে যাবে? দেশের জনগণ গণতন্ত্র চায়। আমেরিকা গণতন্ত্রের আন্দোলনে সমর্থন দিচ্ছে। তাদের নিষেধাজ্ঞার কারণে গার্মেন্টসহ রফতানি খাত আরো ব্যাহত হবে। অর্থনীতির উপর ক্ষতির মাত্রা বাড়বে। হরতাল অবরোধে গণতান্ত্রিক আন্দোলনের পথ পরিক্রমার সহসা হয়তো শেষ হবে না। জনগণের কষ্ট-দুর্ভোগ বাড়বে। সামনের দিনগুলোতে নির্বাচনের পরেও অস্থিরতা তীব্র থেকে তীব্রতর হবে। পরিস্থিতি শ্রীলংকার চেয়েও খারাপ হয়ে যেতে পারে। জনগণ নিষ্পেষিত হয়ে যাবে। তবুও হয়তো একদিন গণতন্ত্র ফিরে আসবে।

চিটাগাং চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি ওমর হাজ্জাজ বলেন, আমাদের প্রবৃদ্ধির হার ৬ থেকে ৭ শতাংশ ছুঁইছুঁই অবস্থানে আমরা পৌঁছে গিয়েছিলাম। কিন্তু দীর্ঘদিন বন্ধ থাকলেও দেশে হরতাল, অবরোধ, সংঘাতের সংস্কৃতি আবারও ফিরে এসেছে। এটা দুঃখজনক। হরতাল-অবরোধের কারণে অর্থনীতির উপর প্রভাব যদি ২০ বা ২৫ শতাংশও ধরি তাহলে একদিনেই ৩ হাজার কোটি টাকা লোকসান হচ্ছে। দুই মাসে হাজার হাজার কোটি টাকার ক্ষতি হচ্ছে। উন্নয়ন অগ্রগতি ব্যাহত হচ্ছে। হরতাল, অবরোধ, অগ্নিসংযোগ এসব ঘটনাকে বিদেশি ক্রেতা ও বিনিয়োগকারীরা ঝুঁকির ফ্যাক্টর হিসেবে দেখছে। তারা নিবিড় পর্যালোচনা করছে। যা অর্থনীতির উপর মরণব্যাধি হয়ে দাঁড়িয়েছে। ইতোমধ্যে রফতানিতে বিরূপ প্রভাব পড়েছে। পরিবহণ খাতসহ প্রতিটি খাতে, স্তরে বিরূপ প্রভাব পড়ছে। নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের মূল্য বৃদ্ধি পাচ্ছে। কর্মজীবী ও শ্রমিকরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে তৈরিপোশাক শিল্প-মালিক ও রফতানিকারকদের সংগঠন বিজিএমইএ’র সহ-সভাপতি রাকিবুল আলম চৌধুরী বলেন, রাজনৈতিক অস্থিরতা ও অনিশ্চয়তার কারণে ক্রেতাদের (বায়ার) মধ্যে ভয়ভীতি বিরাজ করছে। যে পরিমাণে পোশাক রফতানি অর্ডার পাওয়ার কথা তা পাচ্ছি না। ইতোমধ্যে প্রায় ২৫ শতাংশ রফতানি কমে গেছে। আমেরিকায় রফতানিতে ‘গো সেøা’ অবস্থা। শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধি পেয়েছে, উৎপাদন-পরিচালন খরচও বেড়ে গেছে। ডেলিভারি পরিবহণ ব্যয় বেড়েছে। উৎপাদনশীলতা হ্রাস পাচ্ছে। এর মূল কারণ রাজনৈতিক অস্থিরতায় বিরাজমান অনিশ্চয়তা। #


বিভাগ : জাতীয়


মন্তব্য করুন

HTML Comment Box is loading comments...

আরও পড়ুন

সালথায় আগুনে পুড়ল ১২টি দোকান, বিপুল পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি

সালথায় আগুনে পুড়ল ১২টি দোকান, বিপুল পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি

উলভার্টের ১৮৪* ছাপিয়ে আতাপাত্তুর ১৯৫*, শ্রীলঙ্কার রেকর্ডময় জয়

উলভার্টের ১৮৪* ছাপিয়ে আতাপাত্তুর ১৯৫*, শ্রীলঙ্কার রেকর্ডময় জয়

মালিকদের লুটপাটে বেসরকারি অনেকগুলো ব্যাংক ধ্বংসের মুখে

মালিকদের লুটপাটে বেসরকারি অনেকগুলো ব্যাংক ধ্বংসের মুখে

শরিফুল-তাসকিন তোপে উড়ে গেল শেখ জামালও

শরিফুল-তাসকিন তোপে উড়ে গেল শেখ জামালও

বাসের ধাক্কায় কিশোরগঞ্জে দুই মোটরসাইকেল আরোহী নিহত

বাসের ধাক্কায় কিশোরগঞ্জে দুই মোটরসাইকেল আরোহী নিহত

ফারাক্কার প্রভাবে পদ্মা নদী এখন বিলে পরিনত হয়েছে

ফারাক্কার প্রভাবে পদ্মা নদী এখন বিলে পরিনত হয়েছে

আমার স্ত্রীর কোনো ক্ষতি হলে সেনাপ্রধানকে দায়ী করব : ইমরান খান

আমার স্ত্রীর কোনো ক্ষতি হলে সেনাপ্রধানকে দায়ী করব : ইমরান খান

পশ্চিমাদের চাপ বাড়লেও ইরানের তেল রপ্তানিতে বাধা নেই

পশ্চিমাদের চাপ বাড়লেও ইরানের তেল রপ্তানিতে বাধা নেই

কারাবন্দি থেকে ফের গৃহবন্দি সু চি

কারাবন্দি থেকে ফের গৃহবন্দি সু চি

প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ ও প্রদর্শনীর উদ্বোধন প্রধানমন্ত্রীর

প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ ও প্রদর্শনীর উদ্বোধন প্রধানমন্ত্রীর

ক্রিমিয়া ও ডনবাস চিরকাল রাশিয়ার মধ্যে থাকবে: স্লোভাক প্রধানমন্ত্রী

ক্রিমিয়া ও ডনবাস চিরকাল রাশিয়ার মধ্যে থাকবে: স্লোভাক প্রধানমন্ত্রী

রুশ সেনাদের অগ্রগতির কথা স্বীকার করেছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট

রুশ সেনাদের অগ্রগতির কথা স্বীকার করেছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট

সিঙ্গাপুরের নতুন প্রধানমন্ত্রীকে যে চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হবে

সিঙ্গাপুরের নতুন প্রধানমন্ত্রীকে যে চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হবে

বনশ্রীতে লাগা আগুন নিয়ন্ত্রণে

বনশ্রীতে লাগা আগুন নিয়ন্ত্রণে

ছাতকে সড়ক দুর্ঘটনায় কণ্ঠশিল্পী পাগল হাসানসহ প্রাণ গেল দুইজনের

ছাতকে সড়ক দুর্ঘটনায় কণ্ঠশিল্পী পাগল হাসানসহ প্রাণ গেল দুইজনের

ইসরাইল প্রতিশোধ নিলে আঞ্চলিক যুদ্ধের ঝুঁকি বাড়বে: জর্ডান

ইসরাইল প্রতিশোধ নিলে আঞ্চলিক যুদ্ধের ঝুঁকি বাড়বে: জর্ডান

ব্রেন্ডন লিঞ্চের নেতৃত্বে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি দল ঢাকায় আসছেন ২১ এপ্রিল

ব্রেন্ডন লিঞ্চের নেতৃত্বে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি দল ঢাকায় আসছেন ২১ এপ্রিল

মুজিবনগর সরকার এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতা একই সূত্রে গাঁথা: রাষ্ট্রদূত মো.ইমরান

মুজিবনগর সরকার এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতা একই সূত্রে গাঁথা: রাষ্ট্রদূত মো.ইমরান

সেরেল্যাকে অতিরিক্ত চিনি মেশানোর অভিযোগ নেসলের বিরুদ্ধে

সেরেল্যাকে অতিরিক্ত চিনি মেশানোর অভিযোগ নেসলের বিরুদ্ধে

গেরুয়া পোশাক পরা নিয়ে প্রশ্ন তোলায় তেলঙ্গানায় স্কুলে হামলা

গেরুয়া পোশাক পরা নিয়ে প্রশ্ন তোলায় তেলঙ্গানায় স্কুলে হামলা