মুসলিম বিদ্বেষ ঠেকাতে বদ্ধপরিকর : বাইডেন

Daily Inqilab ইনকিলাব ডেস্ক :

০২ মে ২০২৩, ১১:২৮ পিএম | আপডেট: ০৩ মে ২০২৩, ১২:০০ এএম

যুক্তরাষ্ট্রে ইসলামোফোবিয়া বা যেকোনো ধরনের মুসলিম বিদ্বেষ ঠেকাতে বদ্ধপরিকর মার্কিন প্রশাসন। সোমবার হোয়াইট হাউসে মুসলিম মার্কিনীদের সাথে সাক্ষাতে একথা বলেন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। এদিন পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের মধ্য দিয়ে আয়োজনের সূচনা করেন ইমাম মাখদুম জিয়া। পরে মুসলিম অতিথিদের সাথে গল্পগুজবে মাতেন জো বাইডেন। যুক্তরাষ্ট্রে মুসলিমদের অবদানের প্রশংসাও করেন তিনি। কৃতজ্ঞতা জানান যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত মুসলিমদের। দেশটির স্বাধীনতা যুদ্ধে ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের ভূমিকা তুলে ধরেন জো বাইডেন। মনে করিয়ে দেন, যুক্তরাষ্ট্রকে স্বাধীন দেশের স্বীকৃতি দেয়া প্রথম দেশ মরক্কো, যেটি একটি মুসলিম দেশ। বক্তব্য শেষে ‘ঈদ মোবারক’ বলে শুভেচ্ছা জানান মার্কিন প্রেসিডেন্ট। এ সময় বিশ্বজুড়ে দারিদ্র,ক্ষুধা, রোগ জর্জরিত আর বাস্তুচ্যুত মুসলিমদের কথা স্মরণ করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। সব মানুষের অধিকারের পক্ষে নিরলস কাজ করে যাওয়ার অঙ্গীকার করেন তিনি।
বাইডেন বলেন, রমজান সবাইকে ঐক্যবদ্ধ করে, সৃষ্টিকর্তার কাছাকাছি আনে। দরিদ্রদের মাঝে খাবার বিতরণ, পুরো মাস জুড়ে আত্মীয়-বন্ধুরা একসাথে ইফতার আর রমজান শেষে নতুন কাপড়, ঘর সাজানো আর মজাদার মিষ্টান্ন দিয়ে ঈদ উদযাপিত হয়। এর জন্য আমি অপেক্ষা করি। এখানে ৩৫ লাখ মুসলিম রয়েছে, যারা ভিন্ন ভিন্ন জাতি, বর্ণ আর ভাষার মানুষ। যারা সবাই এখন মার্কিনি হিসেবে ঐক্যবদ্ধ হয়েছেন। সূত্র : ফক্স নিউজ।


বিভাগ : আন্তর্জাতিক


মন্তব্য করুন

HTML Comment Box is loading comments...

আরও পড়ুন

কুড়িগ্রামে জাল ভোট দিতে এসে ধরা খেলো রিকশাওয়ালা

কুড়িগ্রামে জাল ভোট দিতে এসে ধরা খেলো রিকশাওয়ালা

প্রকাশ্যে ভোট দেয়ার ভিডিওধারণ করায় সাংবাদিকদের উপর হামলা, আহত ১০

প্রকাশ্যে ভোট দেয়ার ভিডিওধারণ করায় সাংবাদিকদের উপর হামলা, আহত ১০

নেতানিয়াহুর গ্রেফতারি চাওয়ার নেপথ্যে ছিলেন আমাল ক্লুনিও

নেতানিয়াহুর গ্রেফতারি চাওয়ার নেপথ্যে ছিলেন আমাল ক্লুনিও

জয়ে আশাবাদি আশরাফ, রয়েছে ফলাফল ছিনিয়ে নেওয়ার শঙ্কা

জয়ে আশাবাদি আশরাফ, রয়েছে ফলাফল ছিনিয়ে নেওয়ার শঙ্কা

পশ্চিমাদের নিরাপত্তা গ্যারান্টির প্রতি আফ্রিকার দেশগুলোর কেন আস্থা নেই?

পশ্চিমাদের নিরাপত্তা গ্যারান্টির প্রতি আফ্রিকার দেশগুলোর কেন আস্থা নেই?

রইসির হেলিকপ্টার বিধ্বস্তের পর যুক্তরাষ্ট্রের সহায়তা চেয়েও পায়নি ইরান

রইসির হেলিকপ্টার বিধ্বস্তের পর যুক্তরাষ্ট্রের সহায়তা চেয়েও পায়নি ইরান

অবসরের পর চুরির দায়ের কাঠগড়ায় টেনিস তারকা

অবসরের পর চুরির দায়ের কাঠগড়ায় টেনিস তারকা

বেঙ্গালুরুতে রাতভর উদ্দাম পার্টি, মাদকের নেশায় উল্লাস বিধায়ক-নায়িকাদের!

বেঙ্গালুরুতে রাতভর উদ্দাম পার্টি, মাদকের নেশায় উল্লাস বিধায়ক-নায়িকাদের!

বাগেরহাটে আওয়ামী লীগ নেতাকে ছয় মাসের কারাদণ্ড

বাগেরহাটে আওয়ামী লীগ নেতাকে ছয় মাসের কারাদণ্ড

ভোটকেন্দ্রের মাঠে কুকুর, ৩ ঘণ্টায় ভোট পড়েছে মাত্র ১৯টি

ভোটকেন্দ্রের মাঠে কুকুর, ৩ ঘণ্টায় ভোট পড়েছে মাত্র ১৯টি

ইরানের সর্বোচ্চ নেতাকে চিঠি লিখেছেন পুতিন

ইরানের সর্বোচ্চ নেতাকে চিঠি লিখেছেন পুতিন

ইরানি জনগণের মাঝে রাইসি কেন জনপ্রিয় ছিলেন?

ইরানি জনগণের মাঝে রাইসি কেন জনপ্রিয় ছিলেন?

১১ সপ্তাহ বন্ধ থাকার পর খুললো হাইতির বিমানবন্দর

১১ সপ্তাহ বন্ধ থাকার পর খুললো হাইতির বিমানবন্দর

শিল্পীদের ভোটকে অসম্মান করবেন না, ডিপজলের উদ্দেশে রত্না

শিল্পীদের ভোটকে অসম্মান করবেন না, ডিপজলের উদ্দেশে রত্না

ঢাকায় পৌঁছেছেন অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ঢাকায় পৌঁছেছেন অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী

রাইসির মৃত্যুর পর এখন ইরানের ভবিষ্যৎ কী?

রাইসির মৃত্যুর পর এখন ইরানের ভবিষ্যৎ কী?

শত্রুরাই আমার আত্মবিশ্বাস বাড়িয়েছে: পরীমণি

শত্রুরাই আমার আত্মবিশ্বাস বাড়িয়েছে: পরীমণি

ভারতে সাজাভোগ শেষে দেশে ফিরলেন ৮ বাংলাদেশি নারী

ভারতে সাজাভোগ শেষে দেশে ফিরলেন ৮ বাংলাদেশি নারী

কান থেকে ফিরেই হাসপাতালে ঐশ্বরিয়া

কান থেকে ফিরেই হাসপাতালে ঐশ্বরিয়া

অপু বিশ্বাসের জিডি, তিনজনকে সতর্ক করলো পুলিশ

অপু বিশ্বাসের জিডি, তিনজনকে সতর্ক করলো পুলিশ