এপ্রিলে ১৫ হাজার সৈন্য হারিয়েছে ইউক্রেন

Daily Inqilab অনলাইন ডেস্ক

০২ মে ২০২৩, ০৮:০৩ পিএম | আপডেট: ০২ মে ২০২৩, ০৮:০৩ পিএম

রাশিয়ান বাহিনী ইতিমধ্যেই পর্যাপ্ত গোলাবারুদ পেয়েছে যাতে তারা গুলি করে কার্যকরভাবে শত্রুর ক্ষতি করতে পারে এবং দেশীয় প্রতিরক্ষা শিল্প সাধারণত সেনাবাহিনী এবং নৌবাহিনীর প্রয়োজনীয়তা পূরণ করে, প্রতিরক্ষা মন্ত্রী সের্গেই শোইগু মঙ্গলবার সামরিক কমান্ডারদের সাথে একটি কনফারেন্স কলে বলেছেন।

এপ্রিলে, ইউক্রেন যুদ্ধে ১৫ হাজার সৈন্য এবং ৪৩০টি সাঁজোয়া যান হারিয়েছে। অতএব, ফেব্রুয়ারির তুলনায় কিয়েভ সরকারের জনশক্তি ক্ষয়ক্ষতি এক তৃতীয়াংশ বৃদ্ধি পেয়েছে (রাশিয়ান প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় মার্চ মাসে কিয়েভ সরকারের সামরিক কর্মীদের ক্ষতির বিষয়ে রিপোর্ট করেনি)। তিনি বলেন, ‘রাশিয়ান সশস্ত্র বাহিনী পুরো সংঘর্ষ রেখা বরাবর সক্রিয় অপারেশন চালাচ্ছে। পশ্চিমা দেশগুলোর অভূতপূর্ব সামরিক সহায়তা সত্ত্বেও শত্রুরা ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি করছে।’

রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, শুধুমাত্র গত মাসেই কিয়েভ সরকার ১৫,০০০ সৈন্য, আটটি যুদ্ধবিমান এবং ২৭৭টি মনুষ্যবিহীন আকাশযান, ৪৩০টি ট্যাংক এবং অন্যান্য সাঁজোয়া যুদ্ধ যান, ১৮টি মাল্টিপল রকেট লঞ্চার এবং ২২৫টি আর্টিলারি বন্দুক হারিয়েছে। ইউক্রেনের জনশক্তির ক্ষতি ফেব্রুয়ারির তুলনায় এপ্রিলে বেশি প্রমাণিত হয়েছে যখন সরঞ্জামের ক্ষতি জানুয়ারির পরিসংখ্যানকে ছাড়িয়ে গেছে (রাশিয়ান প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের দ্বারা প্রকাশিত সর্বশেষ তথ্য), যদিও ইউক্রেন সেই সময়ে আরও বেশি বিমান হারিয়েছিল।

এদিকে, রাশিয়ার কৌশলগত ক্ষেপণাস্ত্র কর্পোরেশন যা ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা, জাহাজ-বিরোধী, রাডার এবং অন্যান্য ক্ষেপণাস্ত্র তৈরি করে, নতুন অস্ত্রের ব্যাপক উৎপাদন শুরু করেছে। ‘কিছু অত্যাধুনিক অস্ত্র ব্যবস্থার ব্যাপারে, কর্পোরেশন সিরিয়াল উৎপাদনে চলে গেছে, যথেষ্ট কম সময়ের মধ্যে সব ধাপ শেষ করা হয়েছে,’ শোইগু বলেন। সামগ্রিকভাবে, ‘এন্টারপ্রাইজটি প্রতিষ্ঠিত সময়সীমার মধ্যে প্রতিরক্ষা সংগ্রহের পরিকল্পনা পূরণ করে’ কিন্তু এখন ‘যথাসম্ভব কম সময়ের মধ্যে নির্ভুল অস্ত্রের উৎপাদন দ্বিগুণ করা’ প্রয়োজন। সূত্র: তাস।


বিভাগ : আন্তর্জাতিক


মন্তব্য করুন

HTML Comment Box is loading comments...

আরও পড়ুন

ইণ্ডিগো এয়ারলাইনসের স্বেচ্ছাচারিতা

ইণ্ডিগো এয়ারলাইনসের স্বেচ্ছাচারিতা

বৈধপথে রেমিট্যান্স পাঠিয়ে নিজে সম্মানিত হোন দেশকেও সম্মানিত করুন

বৈধপথে রেমিট্যান্স পাঠিয়ে নিজে সম্মানিত হোন দেশকেও সম্মানিত করুন

বাংলাদেশে এখন আর স্বাধীন সাংবাদিকতা নেই: রিজভী

বাংলাদেশে এখন আর স্বাধীন সাংবাদিকতা নেই: রিজভী

এক দশক পর চ্যাম্পিয়ন কলকাতা

এক দশক পর চ্যাম্পিয়ন কলকাতা

জেমস বন্ডের থিম সং লিখেছিলেন লানা দেল রে, তবে মনোনীত হয়নি

জেমস বন্ডের থিম সং লিখেছিলেন লানা দেল রে, তবে মনোনীত হয়নি

খালেদ মুন্নার ফোক ম্যাশআপ

খালেদ মুন্নার ফোক ম্যাশআপ

চেম্বার আদালতে আপিল করলেন ডিপজল

চেম্বার আদালতে আপিল করলেন ডিপজল

‘অ্যানিমেল’ সিক্যুয়েলে রণবীরের প্রতিপক্ষ ভিকি

‘অ্যানিমেল’ সিক্যুয়েলে রণবীরের প্রতিপক্ষ ভিকি

গানে ফিরছেন সঙ্গীতশিল্পী রিংকু

গানে ফিরছেন সঙ্গীতশিল্পী রিংকু

কোক স্টুডিও বাংলায় ওয়ারফেজের গান

কোক স্টুডিও বাংলায় ওয়ারফেজের গান

উন্নয়ন সম্ভাবনায় দক্ষিণের জনপদ

উন্নয়ন সম্ভাবনায় দক্ষিণের জনপদ

নদী রক্ষায় বড় ধরনের যুদ্ধ শুরু হয়েছে, এ যুদ্ধে আমরা বিজয়ী হব : নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

নদী রক্ষায় বড় ধরনের যুদ্ধ শুরু হয়েছে, এ যুদ্ধে আমরা বিজয়ী হব : নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

সর্বজনীন পেনশন স্কিম বাতিল দাবি, ইবি শিক্ষকদের মানববন্ধন

সর্বজনীন পেনশন স্কিম বাতিল দাবি, ইবি শিক্ষকদের মানববন্ধন

বাসের ওপর উল্টে গেল ট্রাক, ১১ জনের মৃত্যু

বাসের ওপর উল্টে গেল ট্রাক, ১১ জনের মৃত্যু

ভয়েস চেঞ্জ অ্যাপে গলা বদলে ৭ শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ

ভয়েস চেঞ্জ অ্যাপে গলা বদলে ৭ শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ

গুগল ম্যাপ দেখে গাড়ি চালিয়ে পানিতে পড়লেন ৪ পর্যটক

গুগল ম্যাপ দেখে গাড়ি চালিয়ে পানিতে পড়লেন ৪ পর্যটক

পৃথিবীর কাছাকাছি বাসযোগ্য নতুন গ্রহ আবিষ্কার

পৃথিবীর কাছাকাছি বাসযোগ্য নতুন গ্রহ আবিষ্কার

বাইডেন ও ট্রাম্পের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতায় ফাটল ধরানোর অভিযোগ কেনেডির

বাইডেন ও ট্রাম্পের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতায় ফাটল ধরানোর অভিযোগ কেনেডির

ভারতে ধনীদের ওপর সম্পদ করারোপ প্রস্তাব

ভারতে ধনীদের ওপর সম্পদ করারোপ প্রস্তাব

নিউইয়র্ক-লন্ডনের তুলনায় এশিয়ায় বাড়ছে আবাসন মূল্য

নিউইয়র্ক-লন্ডনের তুলনায় এশিয়ায় বাড়ছে আবাসন মূল্য