বদলে যাবে হ্যাচারি ও সুখীনীলগঞ্জবাসীর জীবনধারা

উদ্বোধনের অপেক্ষায় রাঙামাটির সুখীনীলগঞ্জ সেতু

Daily Inqilab সৈয়দ মাহাবুব আহামদ, রাঙামাটি থেকে

২৫ মার্চ ২০২৩, ০৮:০৫ পিএম | আপডেট: ৩০ এপ্রিল ২০২৩, ১০:২০ এএম

রাঙামাটির হ্যাচারি এলাকার সুখীনীলগঞ্জ একটি বিচ্ছিন্ন গ্রাম হিসেবে এক সময়ে সবার নিকট পরিচিত ছিল। ১৯৫৬ সালে কাপ্তাই হ্রদ সৃষ্টি হওয়ার পর গ্রামবাসীকে বিচ্ছিন্ন করায় একটি দ্বীপের মধ্যে তাদের বসবাস ছিল। আগে গ্রামবাসী দড়ি টেনে নৌকা বা বাঁশের সাঁকো দিয়ে রাঙামাটি শহরে আসা-যাওয়া করত। বর্তমানে কাপ্তাই হ্রদের ওপরে শহরের কালিন্দীপুর হতে হ্যাচারি এলাকায় রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের অধীনে একটি সেতু নির্মাণ হওয়ায় তাদের জীবনধারা বদলে দিয়েছে। দড়ি টেনে নৌকা বা বাঁশের সাঁকো দিয়ে তাদেরকে আর পারাপার হতে হয় না। সেতু নির্মাণে হ্যাচারি-সুখীনীলগঞ্জের মানুষের স্বপ্ন পূরণে তাদের মধ্যে খুশির ঝিলিক দেখা দিয়েছে। সেতুটি দেখতে প্রতিদিন ভিড় জমাতে দেখা যায় উৎসুক জনতা।
স্থানীয়দের সূত্রে জানা গেছে, রাঙামাটি শহরের হ্যাচারি এলাকার সুখীনীলগঞ্জ হ্রদ বেষ্টিত একটি বিচ্ছিন্ন গ্রাম ছিল। গ্রামবাসীকে কাপ্তাই হ্রদ দিয়ে দড়ি টেনে নৌকায় দিয়ে কষ্ট শিকার করে স্থানীয় বাজারে যাওয়া, চিকিৎসক দেখানো, ছেলে-মেয়েদের স্কুলে যাওয়া ও অফিসিয়াল কাজে শহরে আসতে হত। অবশেষে সেতু নির্মাণ হওয়ায় নৌকায় করে তাদের যাতায়াতে দুর্ভোগ লাঘব হলো। হ্যাচারি এবং সুখীনীলগঞ্জ এলাকায় বর্তমানে প্রায় হাজারো মানুষের বসবাস। ওই এলাকায় রয়েছে সরকারি গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা পুলিশ লাইন, পার্বত্য জেলা পরিষদের মিনি চিড়িয়াখানা এবং মৎস্য হ্যাচারি, রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের বাসভবন এবং নির্মিত হতে যাচ্ছে রাঙামাটি মেডিকেল কলেজের স্থায়ী ভবন।
রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ সূত্রে জানা গেছে, জেলা পরিষদের অর্থায়নে ২০১৭ সালে কালিন্দিপুর-হ্যাচারি-সুখীনীলগঞ্জ সংযোগ সেতুর কাজ শুরু করা হয়। ২২০মিটার দৈর্ঘ্য বা ৭২৮ ফুট, এবং ৬.৫০মিটার প্রস্থের এই সেতু তৈরিতে ব্যয় করা হয়েছে ১২ কোটি ৬২লাখ টাকা। সেতুটি নির্মাণের ফলে শহরের ভেদভেদী-রাঙাপানি-আসামবস্তী এলাকার মানুষ খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে নিজ গন্তব্যে পৌছাতে পারছে।
রাঙামাটি শহরের দক্ষিণ কালিন্দীপুর এলাকার স্থানীয় বাবুল দাশ জানান, দীর্ঘ বছর ধরে হ্যাচারি এলাকার মানুষ কষ্ট করে নৌকাযোগে মূল শহর এবং বিভিন্নস্থানে যাতায়াতসহ বিদ্যালয়ে যেতে হত। নৌকা পার হতে গিয়ে অনেক সময় দুর্ঘটনার শিকার হত। অনেক সময় নৌকা পাওয়া যেত না। এতে তাদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হত। সেতুটি নির্মাণ হওয়ায় তাদের সহজ যাতায়াতের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। এতে তারা অনেক খুশি।
হ্যাচারি এলাকার সুমন জানান, রাতের বেলায় নৌকা পেতে খুবই কষ্ট হতো। এই সেতুটি তৈরি করে দেয়ায় পার্বত্য জেলা পরিষদ ও প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান তিনি।
শহরের সুখীনীলগঞ্জ এলাকার কলেজ পড়–য়া ছাত্রী রিনি চাকমা জানান, ব্রিজটি হওয়ার আগে ভেদভেদী হয়ে বনরুপায় আসতে সময় লাগতো ৩০-৪০ মিনিট। আর এখন সময় লাগে মাত্র ১০ মিনিট।
হ্যাচারি এলাকার বাসিন্দা মো. জাকির জানান, এই সেতুটি নির্মিত হওয়ার ফলে কালিন্দীপুর-হ্যাচারি এলাকা-হাসপাতাল এলাকার মানুষ খুব অল্প সময়ের মধ্যে রাঙাপানি ও আসামবস্তী পৌঁছাতে পারছে। তিনি আরো জানান, ব্রিজের ওপারে হাসপাতাল হওয়ায় মুমূর্ষ রোগীদের দ্রুত রাঙামাটি সদর হাসপাতালে আনা নেয়া করা যাচ্ছে। আগে হাসপাতালে রোগী নিয়ে আসতে তাদের আধা ঘণ্টা লাগতো।
রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অংসুই প্রু চৌধুরী জানান, হ্যাচারি এলাকাটি এক সময় বিচ্ছিন্ন দ্বীপ ছিল। সেতুটি হওয়ার ফলে ঐ এলাকার সাথে সংযোগ স্থাপন হয়েছে। ইতোমধ্যে সেতুটির কাজ শেষ হয়েছে। অতি দ্রুত সময়ে সেতুটি উদ্বোধন করা হবে। তিনি আরো জানান, হ্যাচারি-সুখীনীলগঞ্জ এলাকা যেতে হলে বিগত সময়ে প্রায় ৩-৪ কি:মি: সড়ক ঘুরে যেতে হত। এখন ব্রিজটি হওয়াতে এই এলাকার সাথে একটি যোগাযোগ সৃষ্টি হয়েছে।


বিভাগ : আজকের পত্রিকা


মন্তব্য করুন

HTML Comment Box is loading comments...

আরও পড়ুন

কুড়িগ্রামে জাল ভোট দিতে এসে ধরা খেলো রিকশাওয়ালা

কুড়িগ্রামে জাল ভোট দিতে এসে ধরা খেলো রিকশাওয়ালা

প্রকাশ্যে ভোট দেয়ার ভিডিওধারণ করায় সাংবাদিকদের উপর হামলা, আহত ১০

প্রকাশ্যে ভোট দেয়ার ভিডিওধারণ করায় সাংবাদিকদের উপর হামলা, আহত ১০

নেতানিয়াহুর গ্রেফতারি চাওয়ার নেপথ্যে ছিলেন আমাল ক্লুনিও

নেতানিয়াহুর গ্রেফতারি চাওয়ার নেপথ্যে ছিলেন আমাল ক্লুনিও

জয়ে আশাবাদি আশরাফ, রয়েছে ফলাফল ছিনিয়ে নেওয়ার শঙ্কা

জয়ে আশাবাদি আশরাফ, রয়েছে ফলাফল ছিনিয়ে নেওয়ার শঙ্কা

পশ্চিমাদের নিরাপত্তা গ্যারান্টির প্রতি আফ্রিকার দেশগুলোর কেন আস্থা নেই?

পশ্চিমাদের নিরাপত্তা গ্যারান্টির প্রতি আফ্রিকার দেশগুলোর কেন আস্থা নেই?

রইসির হেলিকপ্টার বিধ্বস্তের পর যুক্তরাষ্ট্রের সহায়তা চেয়েও পায়নি ইরান

রইসির হেলিকপ্টার বিধ্বস্তের পর যুক্তরাষ্ট্রের সহায়তা চেয়েও পায়নি ইরান

অবসরের পর চুরির দায়ের কাঠগড়ায় টেনিস তারকা

অবসরের পর চুরির দায়ের কাঠগড়ায় টেনিস তারকা

বেঙ্গালুরুতে রাতভর উদ্দাম পার্টি, মাদকের নেশায় উল্লাস বিধায়ক-নায়িকাদের!

বেঙ্গালুরুতে রাতভর উদ্দাম পার্টি, মাদকের নেশায় উল্লাস বিধায়ক-নায়িকাদের!

বাগেরহাটে আওয়ামী লীগ নেতাকে ছয় মাসের কারাদণ্ড

বাগেরহাটে আওয়ামী লীগ নেতাকে ছয় মাসের কারাদণ্ড

ভোটকেন্দ্রের মাঠে কুকুর, ৩ ঘণ্টায় ভোট পড়েছে মাত্র ১৯টি

ভোটকেন্দ্রের মাঠে কুকুর, ৩ ঘণ্টায় ভোট পড়েছে মাত্র ১৯টি

ইরানের সর্বোচ্চ নেতাকে চিঠি লিখেছেন পুতিন

ইরানের সর্বোচ্চ নেতাকে চিঠি লিখেছেন পুতিন

ইরানি জনগণের মাঝে রাইসি কেন জনপ্রিয় ছিলেন?

ইরানি জনগণের মাঝে রাইসি কেন জনপ্রিয় ছিলেন?

১১ সপ্তাহ বন্ধ থাকার পর খুললো হাইতির বিমানবন্দর

১১ সপ্তাহ বন্ধ থাকার পর খুললো হাইতির বিমানবন্দর

শিল্পীদের ভোটকে অসম্মান করবেন না, ডিপজলের উদ্দেশে রত্না

শিল্পীদের ভোটকে অসম্মান করবেন না, ডিপজলের উদ্দেশে রত্না

ঢাকায় পৌঁছেছেন অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ঢাকায় পৌঁছেছেন অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী

রাইসির মৃত্যুর পর এখন ইরানের ভবিষ্যৎ কী?

রাইসির মৃত্যুর পর এখন ইরানের ভবিষ্যৎ কী?

শত্রুরাই আমার আত্মবিশ্বাস বাড়িয়েছে: পরীমণি

শত্রুরাই আমার আত্মবিশ্বাস বাড়িয়েছে: পরীমণি

ভারতে সাজাভোগ শেষে দেশে ফিরলেন ৮ বাংলাদেশি নারী

ভারতে সাজাভোগ শেষে দেশে ফিরলেন ৮ বাংলাদেশি নারী

কান থেকে ফিরেই হাসপাতালে ঐশ্বরিয়া

কান থেকে ফিরেই হাসপাতালে ঐশ্বরিয়া

অপু বিশ্বাসের জিডি, তিনজনকে সতর্ক করলো পুলিশ

অপু বিশ্বাসের জিডি, তিনজনকে সতর্ক করলো পুলিশ